ওদের স্বপ্নের চাবিকাঠি আপনার বিয়ের পোষাকে

0
325

নিউজ ডেস্কঃ ভারতের মতো দেশে বিয়ে মানে হৈ চৈ। বিয়ের প্রায় ৬ মাস আগে থেকেই শুরু হয়ে যায় বিয়ের প্রস্তুতি। দুটো মানুষের একসঙ্গের বাস করাকে সামাজিক বৈধতা দেওয়াই শুধু নয়। বরং বিয়ে হল ভারতীয়দের কাছে উৎসব। হবু দম্পতিও এই দিনটার জন্য বহু অপেক্ষা করে থাকেন। একটা দিনকে ঘিরেই তাঁদের বহু স্বপ্ন। বিয়ের দিন কি পোষাক পরবেন, কোথায় বিয়ে করবেন, ক’জন নিমন্ত্রিত থাকবেন এবং কি খাবারের মেনু হবে, সমস্ত ঘিরে শুরু হয় বিরাট তোড়জোড়।

wedding 1

কিন্তু সবার স্বপ্ন সফল হয় না। টাকাই যেন এই সব স্বপ্নের সামনে শত্রুর মতো বাধ সাধে। সুন্দর পোষাক পরে বিয়ে করবেন এমনটা তো কনে চাইবেনই। নিজের বিয়েতে যদি সবচেয়ে সুন্দর দেখতে না লাগে তাহলে আর বিয়ে কি! কিন্তু যে সমস্ত গ্রামের  মানুষের দিন আনা দিন খাওয়া জীবন যাপন, তাদের কাছে বিয়ের জন্য আলাদা পোষাক কেনা স্বপ্নের মতন।

Source: siddharthjain
Source: siddharthjain

সুন্দর পোষাক পরে বিয়ের পিঁড়িতে বসার স্বপ্নকে এবার বাস্তবিক রূপ দিতে চলেছে ‘গুনজ্‌’ নামে একটি সংস্থা। যে সমস্ত পরিবারের বিবাহ সামগ্রী কেনার ক্ষমতা নেই তাদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে এই সংস্থা। বিবাহ সামগ্রী ও পোষাক দিয়ে সাহায্য করবে ‘গুনজ্‌’।

wedding 3
Source: thebetterindia

‘গুনজ্‌’ পুরনো বিয়ের পোষাক সংগ্রহ করে এবং সেগুলিকে মেরামত করে প্রত্যন্ত গ্রামের পরিবারগুলির হাতে তুলে দেয়। শহরের পরিবার গুলি থেকে এই পুরনো পোষাকগুলি সংগ্রহ করে এই সংস্থা। বিভিন্ন মন্দিরে ঠাকুরকে অনেক সময় লাল ওড়না দেওয়া হয়। সেই ওড়নাও ‘গুনজ্‌’এর কর্মীদের হাতে বিয়ের পোষাকে বদলে যায়। বিবাহ সামগ্রীর তালিকায় বিয়ের পোষাক থেকে শুরু করে, জুতো, গয়না, ব্যাগ্, মেক আপ, চাদর ইত্যাদি থাকে।

wedding 4

এই উদ্যোগের ফলে এই পরিবার গুলির উপর থেকে অনেকটাই খরচের বোঝা কমে গিয়েছে। এখনও অবধি এই সংস্থা উত্তরাখন্ড, মধ্যপ্রদেশ ও বিহারের মোট ১০০টি পরিবারকে বিবাহ সামগ্রী প্রদান করেছে। এই তালিকায় যা থাকে, তা বেশির ভাগ সময়ই গ্রামের দম্পতিদের কাছে আশাতীত হয়ে থাকে। গুনজের এই পদক্ষেপে অনেক মানুষ এই বিশেষ দিনকে ঘিরে স্বপ্ন গুলোকে সত্যি করতে পেরেছেন। আপনিও পারেন এমন অনেকের স্বপ্ন পূরণ করতে।

আপনার বিয়ের পুরনো পোষাক যদি দান করতে চান, তাহলে এই লিঙ্কে ক্লিক করুনঃ http://goonj.org/page_id=22873/index.html

 

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY